হোম অন্যান্য PUBG: মারণ খেলায় ডুবে প্রজন্ম, এ দায় আমাদেরও

PUBG: মারণ খেলায় ডুবে প্রজন্ম, এ দায় আমাদেরও

অমিত মিত্র
হিংস্রতা, মারামারি, যুদ্ধ, দখল এবং রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। হিংসার উদ্দাম আনন্দ নিয়ে দুর্গম গিরিপর্বত, নদীনালা, জঙ্গল ও সমুদ্রের উপর দিয়ে শত্রু খুঁজে বেড়ানো। বাঙ্কার খনন করে ওঁৎ পেতে থাকা। প্রতি মুহূর্তে শত্রুর আক্রমণের টেনশন। আরও দ্রুত চলতে হবে! যত সম্ভব বেশি আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে প্রতিপক্ষকে শেষ করতে হবে! যত বেশি সহিংসতা তত বেশি পয়েন্ট! কোমলমতি কৈশোর জানে না, কেন তারা এ মারণখেলা খেলছে!

‘অনলাইন গেমস’-এর (online games) মধ্যে এ যাবৎকালে পৃথিবীর সবচেয়ে জনপ্রিয় গেমটির নাম ‘পাবজি’ (PUBG)। দক্ষিণ কোরিয়ার (South Korea) ভিডিও গেমস (Video Games) নির্মাতা প্রতিষ্ঠান পিইউবিজি কর্পোরেশন ২০১৭ সালের মার্চ মাসে এই অনলাইন মাল্টিপ্লেয়ার গেমটি বাজারে আনে। ধ্বংসাত্মক খেলায় একের পর এক মানুষ খতম করছে গেমার। কখনও হাতুড়িপেটা করে মাথা থেঁতলে দিচ্ছে। মুহূর্তে রক্তে ভেসে যাচ্ছে মেঝে। কখনও গ্রেনেড ছুঁড়ে প্রতিপক্ষের পা জখম করছে। এরপর খোঁড়াতে খোঁড়াতে পলায়নপর মানুষটির উপর মারছে দ্বিতীয় গ্রেনেড। বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে তার হাত পা।

তারপর রক্তমাখা দেহটা লুটিয়ে পড়ছে খেলোয়াড়ের পায়ের উপর! চোখের সামনে ভাসছে জীবন্ত যুদ্ধক্ষেত্র। কানে আসছে অস্ত্র ও গোলাবারুদ ব্যবহারের বাস্তব আওয়াজ। এমনকি আহত শত্রুসেনার রক্তমুখের গর্গর শব্দটাও শুনতে পাচ্ছে আমার-আপনার সন্তান! এতে কিন্তু তার আনন্দ, উৎসাহ এবং উত্তেজনা কেবল বৃদ্ধিই পাচ্ছে।

অনলাইনভিত্তিক এই ভিডিও গেমটিতে একটি পরিত্যক্ত দ্বীপে বা স্থানে খেলোয়াড় এবং তার টিমকে প্রথমে প্যারাসুটের মাধ্যমে নামিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে শত্রুপক্ষকে হত্যা করে টিকে থাকতে হয়। ভয়ংকর সব গোলাবারুদ ও আগ্নেয়াস্ত্র সংগ্রহ করে খতম করতে হয় একে একে সবাইকে। এক্ষেত্রে বিশ্বাসঘাতকতারও আশ্রয় নেওয়া হয়। চলে হত্যার ষড়যন্ত্র-পরিকল্পনা। অনলাইনে বন্ধুরা পরস্পরে কথাবার্তা বলে এই হত্যাযজ্ঞের বিষয়ে শলা-পরামর্শ করে। কত পয়েন্ট পাওয়া গেল, কতজন নিহত হল, বাকিদেরকে কী ভাবে হত্যা করা যায়- এসবই এই ভয়ঙ্কর গেমের বিষয়। হত্যাযজ্ঞ শেষে যে ব্যক্তি বা যে গ্রুপ বেঁচে থাকে, তারাই হয় বিজয়ী।

এই প্রজন্ম মোবাইল ফোনের স্ক্রিনে ‘পাবজি’তে এতটাই মগ্ন থাকছে যে, বাস্তব পৃথিবী ভুলে তারা এক বিপজ্জনক নেশায় আক্রান্ত হয়ে পড়ছে। ভিডিও গেমসের এ নিধনযজ্ঞ তাদের অবচেতনে গ্রাস করে ফেলছে বোধ, অনুভূতি, চিন্তাশক্তিকে। বিশ্ব-পরিসংখ্যান বলছে, ১৬ থেকে ২৬ বছর বয়সীদের মধ্যেই এই গেমসে ডুবে থাকার প্রবণতা বেশি লক্ষ্য করা যায়। করোনা আবহে সারা দেশে এখন বন্ধ স্কুল-কলেজ, এমনকী পরীক্ষাও। ঘরবন্দি জীবন। পঠন-পাঠন ওই অনলাইনেই। এরই সঙ্গে দিনরাত এক করে মোবাইল ফোনে মুখ গুঁজে পাবজিতে নিমগ্ন ছেলে-মেয়েরা।

মনোবিদদের মতে, এই গেম যারা খেলে, তারা চরম নেশায় আক্রান্ত হয়। হিংস্র মনোভাবাপন্ন একটা প্রবণতা পেয়ে বসে তাদের। মনোরোগ চিকিৎসকরা বলছেন, মানুষের মধ্যে লুকিয়ে থাকা ধ্বংসাত্মক মনোভাবকে টেনে বের করে আনে এই গেম। খেলার ছলে প্রশ্রয় দেয় রক্ত, মৃত্যু, খুন এবং জয়।

ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস (Electronic Device) ঘটিত এই আসক্তিকে মনোবিজ্ঞানীরা নাম দিয়েছেন ‘ডিজিটাল মাদক’ (Digital Addiction)। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (World Health Organization) ভিডিও গেমসের প্রতি তীব্র আসক্তিকে বিশেষ এক ধরনের মানসিক অসুস্থতা হিসেবে চিহ্নিত করেছে। এই অসুখের নাম দেয়া হয়েছে ‘গেমিং ডিসঅর্ডার’ বা ‘গেমিং রোগ’। সংস্থার খসড়া একটি নথিতে ভিডিও গেমে আসক্তিকে একটি আচরণগত সমস্যা হিসেবে উল্লেখ করে বলা হয়েছে। এতে আচরণে আসক্তির সব লক্ষণ রয়েছে অর্থাৎ, বারবার এই খেলার প্রবণতা দেখা দেয় এবং এর থেকে সরে আসা কঠিন বলেও দেখা যায়। এছাড়াও জীবনের অন্য সব কিছু ছাপিয়ে প্রাধান্য পায় এই গেমিং-এর নেশা।

যে তরুণ-তরুণীরা স্বপ্ন দেখবে আগামীর, স্বপ্ন দেখবে নিজেদের জীবন গড়ার, তারাই আজ অনলাইন গেমে আসক্তির কারণে শারীরিক এবং মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ছে। মনোবিদরা বলছেন, এই বয়সে অতিরিক্ত পরিমাণে গেমস খেলার বিষয়টি সর্বদা চিন্তাচেতনা ও আচরণের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে, যা সামাজিক এবং তার কর্মদক্ষতাকে কমিয়ে দিচ্ছে। পড়াশোনা, খেলা কিংবা গান-বাজনা, ছবি আঁকার মতো অনান্য ভালো লাগাগুলো বাদ দিয়ে নিজের খেয়াল-খুশিমতো দিন-রাত অনলাইন গেমে মেতে ওঠা- যা একসময় আসক্তির পর্যায়ে চলে যায়। ঘরে আবদ্ধ হয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা গেম খেলায় মগ্ন হয়ে থাকে। খাওয়াদাওয়ার কথা ভুলে সব চিন্তাচেতনা গেমের প্রতি দিয়ে দেয়। সব আনন্দ যেন অনলাইন গেমজুড়ে। সকালে ঘুম থেকে উঠেই ডেটা অন করে গেম খেলা শুরু করে চলতে থাকে গভীর রাত পর্যন্ত। গেমের প্রতি আসক্তির ফলে পড়াশোনা বা স্বাস্থের প্রতি কোনো খেয়াল থাকে না। অনেক সময়ই মেজাজ থাকে খিটখিটে। পরিবারের কেউ ডাকলে সারা না দিয়ে রাগারাগির পর্যায়েও চলে যায়; যা অনেক ক্ষেত্রে বিপদ এনেছে। এই ধরনের বহু ঘটনা অনেকবারই খবরে এসেছে।

তবে এর যাবতীয় দায় কি শুধুই এই প্রজন্মের!নিজ-নিজ বৃত্তে অবস্থান করা মাতা-পিতারা কি এই দায় এড়াতে পারেন! আসলে প্রায় সবাই আমরা ঢুকে পড়েছি আন্তর্জালের এক ভার্চুয়াল জগতে। সেখানে বন্ধু হয়, প্রেম হয়… বৈচিত্রে ভরা হরেক বিষয় চোখের সামনে ধরা দেয় মুঠোফোনে। এভাবেই আমরাও ঢুকে পড়ি নিজ-বৃত্তে, আমাদের সন্তানেরা তাদের বৃত্তে। বিকেল হলে মাঠে দল বেঁধে খেলারা হারিয়ে গেছে। পাড়ার আড্ডাও আজ ফ্ল্যাটবন্দি হয়েছে। আর তাদের একাকীত্বের হাত ধরেছে পাবজিরা। ক্রমেই তাদের নিয়ে যাচ্ছে এক গভীর অতলে; যেখানে রণ-রক্ত-যুদ্ধ জয়ের নেশায় তলিয়ে যাচ্ছে প্রজন্ম! আমরা হয়ত বুঝছি, কিন্তু আটকাতে পারছি কই!

আমাদের পাশে থাকুন

আমজনতাই আমাদের চালিকা শক্তি। আপনার সামান্য অনুদান আমাদের চলার পথে সাহস জোগাতে পারে।

ইচ্ছুকরা এই অ্যাকাউন্টে অনুদান পাঠাতে পারেন :
Bank Name : Bank of Baroda
A/C Name : Kolkata News Today
A/C No. 30850200000526
IFSC Code : BARB0MADHYA

GSTIN : 19AJEPM5512C1ZI
Email : kolkatanewstoday@gmail.com

সবাই যা পড়ছেন

Ghatal : জলে ভাসছে ঘাটালের বিস্তীর্ণ অংশ, দুর্গত এলাকায় সুব্রত মুখার্জি

বিশেষ প্রতিনিধি : ২ দিনের টানা বর্ষণে প্লাবিত হয়ে পড়েছে ঘাটাল (Ghatal), দাসপুরের বিস্তীর্ণ এলাকা। এই নজিরবিহীন বিপর্যয়ের জন্য কেন্দ্রকে দায়ী করেছেন...

Babul BJP : ফের ডিগবাজি বাবুলের, বললেন, “রাজনীতি ছাড়ছি, তবে সাংসদ থাকছি”

ফের ডিগবাজি বিজেপি (BJP) সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়র (Babul Supriya)। রাজনীতি এবং সাংসদ পদ ছাড়ার কথা ঘোষণা করেছিলেন বাবুল। সোমবার বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি...

East Bengal : আইএসএলে খেলবে ইস্টবেঙ্গল, সমর্থকদের স্বস্তি দিয়ে ঘোষণা মমতার

লক্ষ লক্ষ ইস্টবেঙ্গল (East Bebgal) সমর্থকের মুখে হাসি ফুটিয়ে স্বস্তির বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। যাবতীয় বিতর্ক দূরে সরিয়ে মুখ্যমন্ত্রী...

Kolkata : দাঁড়িয়ে বর্ষার জল, ম্যানহোলের ভিতরে মিলল বালির বস্তা, লেপ, তোষক

বৃষ্টির পর ২ দিন কেটে গেলেও কলকাতার বিভিন্ন এলাকা এখনও জলে ভাসছে। এর মধ্যেই রবিবারম্যানহোলে মিলল বালির বস্তা, ইট, লেপ তোষক। ড্রেন...

Olympic Sindhu : পরপর দুই অলিম্পিকে পদক, অনন্য নজির সিন্ধুর

পরপর দুটি অলিম্পিকে (Olympic) পদক জয়ের নজির গড়লেন পি ভি সিন্ধু (P V Sindhu)। গত অলিম্পিকে জিতেছিলেন রুপো। এবার টোকিও অলিম্পিকে জিতলেন...